wholesale jerseys and real Jerseys Wholesale

গবেষক কে?

2017-03-31 23:28:11

যে কোন ব্যক্তিকেই  গবেষক বলা যাবে না। এমনকি তিনি লেখক হলেও না, শিক্ষক হলেও না। কি কি গুনাগুণ থাকলে একজন ব্যক্তিকেই গবেষক বলা যাবে তার কিছু নিম্নে বর্ণনা করা হলোঃ



১। একজন গবেষকের থাকতে হবে বিশেষজ্ঞ জ্ঞান (Specialized knowledge), মূল সমস্যাগুলো শনাক্ত করার ধারণাগত ও বুদ্ধিবৃত্তিক দক্ষতা। পাশাপাশি থাকতে হবে সমালোচনামূলক ও বুদ্ধিবৃত্তিক সামর্থ্য, এবং সেই সাথে থাকতে হবে নতুন চিত্তাকর্ষক অন্তর্দৃষ্টি তৈরি করার ক্ষমতা।



২। একজন গবেষকের থাকতে হবে উচ্চ মানসম্পন্ন পাণ্ডিত্যপূর্ণ লিখিত পত্র ও গবেষণাপত্র প্রকাশ করার একাডেমিক দক্ষতা। এই পত্রগুলোতে উপস্থাপিত বক্তব্যের সমর্থনে পর্যাপ্ত পরিমাণে এভিডেন্স ও আর্গুমেন্ট থাকতে হবে। গবেষণাপত্রের উপস্থাপনা এতটাই চিত্তাকর্ষক হতে হবে যেন তা উৎসুক পাঠক বা শ্রোতাদের মন কেড়ে নেয় (হতে পারে সেই পাঠক বা শ্রোতা একজন বিশেষজ্ঞ অথবা একজন সাধারণ মানুষ)।



৩। একজন গবেষকের থাকতে হবে কার্যকরী ভাবে জ্ঞানের উৎস ব্যবহারের দক্ষতা। তিনি এটা করবেন তথ্য সংগ্রহ ও বিন্যস্ত করার উদ্দেশ্যে। তিনি এটা করবেন টেক্সট, ডাটা ও থিওরি বিশ্লেষণ করার উদ্দেশ্যে।



৪। একজন গবেষকের থাকতে হবে এমন কিছু ব্যক্তিগত গুণাগুণ যেন, তাঁর উচ্চাকাঙ্ক্ষা ও সামর্থ্য থাকে উচ্চমানের গবেষণা করার। তিনি যেন উদ্যোগ নিতে পারেন ও দায়িত্ববোধসম্পন্ন হন। অন্যদের সাথে সহযোগিতা করার নিমিত্তে তিনি যেন হন সুসংগঠিত ও সুবিচারক।



৫। একজন গবেষকের থাকতে হবে সামাজিক যোগাযোগের দক্ষতা, যেন তিনি ছাত্র, সহকর্মী ও শিক্ষাবিদদের সাথে কার্যকরী ও যথাযথভাবে ইন্টারএ্যাকট করতে পারেন। উনার আরও থাকতে হবে বিভিন্ন পরিস্থিতি যথাযথভাবে মোকাবেলা করার দক্ষতা। পাশাপাশি তিনি যেন পণ্ডিত মহলের বৃহত্তর পরিসরে নিজেকে একীভূত করতে পারেন।



এককথায় বলা যায়, যেই উচ্চ জ্ঞানসম্পন্ন ও উচ্চ মানসম্পন্ন ব্যক্তি  নতুন জ্ঞান তৈরি, নতুন ধারণা তৈরি, নতুন নতুন উৎপাদন (products), প্রক্রিয়া (processes), উপায় (methods) ও পদ্ধতি (systems) সৃষ্টি এবং নতুন কোন প্রকল্পের ব্যবস্থাপনায় নিয়োজিত আছেন, তিনিই একজন গবেষক।



উল্লেখ্য যে আনুষ্ঠানিক গবেষণা করতে গেলে আনুষ্ঠানিক গবেষণা করার পদ্ধতি (Research Methodology) জানতে হবে। Research Methodology না জানা থাকলে অপ্রয়োজনীয় ত্রুটি হবেই, যেমনটি হয়েছিলো গণিতবিদ রামানুজান-এর ক্ষেত্রে। তবে কেউ কেউ নিছক তাঁর ব্যক্তিগত জ্ঞানের ক্ষুধা মিটানোর জন্যও নিজের মত করে অনুসন্ধান করে যেতে পারেন। যদি এভাবে তিনি নতুন কোন কিছুর সন্ধান পান, তাহলে সেটাও গবেষণা এবং তিনিও একজন গবেষক। তবে তিনি নতুন কিছুর সন্ধান পেলেন এবং পৃথিবীকে জানালেন না, এটা হবে স্বার্থপরের মত কাজ। তাই পৃথিবীকে জানানোর উপায় হলোঃ  গবেষণাপত্রটি প্রকাশ করা, অথবা নিদেনপক্ষে কনফারেন্স বা সেমিনারে তা তুলে ধরা। গবেষণাপত্রটির পূর্ণতা না থাকলে বা তা আদৌ গবেষণা না হলে কর্তৃপক্ষ তাকে প্রকাশ করবে না নিঃসন্দেহে। আর কনফারেন্স বা সেমিনারে তা তুলে ধরলে উপস্থিত দর্শক-শ্রোতাদের প্রশ্ন-মতামতের মধ্য দিয়েই বেরিয়ে আসবে তার গবেষণাপত্রের স্বীকৃতি ও মান।



যেই ব্যক্তির কোন গবেষণাপত্র কোন স্বীকৃত জার্নালে প্রকাশিত হয় নাই তাকে গবেষক বলা যাবে না। তবে তাঁর লিখিত প্রকাশিত কোন পত্র বা বই যদি এমনভাবে সাড়া ফেলে যে অন্যান্য গবেষকরা তা আনুষ্ঠানিকভাবে ব্যবহার করছে সে ক্ষেত্রে বিদগ্ধ মহল তাকে গবেষকের মর্যাদা দিতে পারে।

এডিটরনোট:    0

প্রকাশিত সব তথ্য আর মতামত লেখকের আর মন্তব্য কারীর ব্যক্তিগত, সাইয়েন্টিফিক বাংলাদেশের নয়। সাইয়েন্টিফিক বাংলাদেশ আইনগত বা অন্য কোন দায় গ্রহণ করবে না তথ্যের সঠিকতা বা পাঠকের মন্তব্যের জন্য।

Rate it :12345
Tell a Friend
 
Loading... Please wait...